বিয়ের পরে মেয়েদের ওজন বাড়ে, কিন্তু কেন? - Rajbari News | রাজবাড়ী নিউজ | ২৪ ঘন্টাই সংবাদ

Breaking

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Sunday, December 9, 2018

বিয়ের পরে মেয়েদের ওজন বাড়ে, কিন্তু কেন?

বিয়ের পরে মহিলাদের ওজন বাড়ার প্রবণতা দেখা দেয়। জেনে নিন দশটি অব্যর্থ কারণ যা এই সময় মেয়েদের শারীরিক ওজন দ্রুত বাড়তে সাহায্য করে।
> হরমোন নিঃসরণে পরিবর্তন : বিয়ের পরে অধিকাংশ মেয়েরই জীবনযাত্রা পাল্টে যায়। এর জেরে দ্রুত পরিবর্তন ঘটে শরীরে নিঃসৃত হরমোনের। তার জেরেই শরীরে বাড়তি মেদ জমতে শুরু করে। হু হু করে বাড়তে থাকে ওজন। সমীক্ষা বলছে, বিয়ের ৫ বছরের মধ্যে অন্তত ৮২% নারীর দৈহিক ওজনবৃদ্ধি ঘটে।
> গাফিলতি : বিয়ের আগে ছিপছিপে শরীর ধরে রাখতে খাদ্যাভ্যাস ও ব্যায়ামের দিকে নজর রাখেন বেশির ভাগ মহিলা। কিন্তু বিবাহিত জীবনে প্রবেশের পরে সেই সমস্ত যত্নে ভাটা দেখা দেয়। জাঙ্ক ফুড খাওয়া, ব্যায়াম না করার মতো বদভ্যাস তো দেখা দেয়ই, তার সহ্গে শুরু হয় নতুন জীবনে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য নিরন্তর আপস। আর এর জেরে বেড়ে যায় শরীরের ওজন।
> ঘুমের অভাব : বিয়ের পরে মেয়েদের শোওয়ার ভঙ্গি ও সময়ে হেরফের ঘটে। রাতের পর রাত জেগে থাকার কারণে হজমের গন্ডগোল দেখা দেয়। শরীরে জমতে থাকে অপ্রয়োজনীয় চর্বি।
> রুচি পরিবর্তন : কখনও স্বামী, আবার কখনও তাঁর আত্মীয়দের জীবনযাত্রার সঙ্গে তাল রাখতে গিয়ে বিয়ের পরে অধিকাংশ নারীর রুচি বদলে যায়। কিন্তু লাগাতার আপস করতে গিয়ে ফাঁক থেকে যায় নিজের প্রতি যত্নে। নতুন পরিবেশে নতুন জীবনসঙ্গীর পছন্দের সঙ্গে তাল রাখতে গিয়েও নিজের পছন্দ-অপছন্দ গুরুত্ব হারায়। আর তার ফলে দেখা দেয় মেদবৃদ্ধি।
> জাঙ্ক ফুড : নববিবাহিত দম্পতি বাড়ির খাবারের তুলনায় রেস্তোরাঁ-স্ন্যাক্স বারে খেতে বেশি পছন্দ করেন। অতিরিক্ত বাইরের খাবার শরীরে চটপট চর্বি জমায়।
> বয়স : বর্তমানে শহুরে মেয়েদের বিয়ের বয়স দাঁড়িয়ে গড়ে ২৮-৩০ বছর। কিন্তু ৩০ বছরের পরে নারী শরীরে বিপাক ক্রিয়া শ্লথ হয়ে পড়ে। এর ফলে দেহে অতিরিক্ত মেদ জমে।
> স্ট্রেস : বাংলাদেশের মেয়েদের ক্ষেত্রে বিয়ের সঙ্গে সঙ্গে অন্যত্র বসবাস শুরু করার রীতি জারি রয়েছে। অনেক সময় শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের সঙ্গে বনিবনায় ঝামেলা দেখা দেয়। নতুন দাম্পত্য জীবনে খাপ খাইয়ে নিতেও করতে হয় আপস। কিন্তু এ সবের জেরে মানসিক স্ট্রেস বাড়ে কয়েক গুণ। তার জেরে রোজের খাদ্যাভ্যাসে বদল ঘটে, কেউ কেউ বেশি পরিমাণ খাদ্য গ্রহণ করতে শুরু করেন। তার জেরেই ঘটে মেদবৃদ্ধি।
> লৌকিকতার চাপ : নববিহাতি দম্পতিকে ঘন ঘন নানান আচার-অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করতে হয়। তাঁদের প্রায়ই নিমন্ত্রণ করে খাওয়ান আত্মীয়-বন্ধুরা। নিজেদের বাড়িতেও অনেক সময় পার্টি লেগেই থাকে। তার ফলে শরীরে জমতে থাকে বাড়তি মেদ।
> টিভির নেশা : বিয়ের আগে যে মেয়েটি পড়াশোনা বা অফিসের পরে বন্ধুদের সহ্গে আড্ডায় মশগুল হত, দাম্পত্য জীবনে ঢোকার পরে কাজ সেরে তাড়াতাড়ি বাড়ি ফিরতে সে মরিয়া হয়ে ওঠে। তার স্বামীও কর্মক্ষেত্র থেকে তাড়াতাড়ি বাড়ি ফেরার চেষ্টা করেন। বেশির ভাগ পরিবারেই সান্ধ্য বিনোদনে টিভি-র গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা দেখা দিয়েছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা টিভির সামনে বসে থাকলে চর্বি না বাড়াই অস্বাভাবিক।
> গর্ভধারণ: অধিকাংশ দম্পতি বিয়ের ২-৩ বছরের মধ্যে সন্তানের পরিকল্পনা করেন। কিন্তু সন্তান প্রসবের পরে বেশির ভাগ মহিলা ওজন কমানোর জন্য সচেষ্ট হন না। গর্ভাবস্থার মেদ তাঁদের শরীরে স্থায়ী আসন পাতে।

Post Top Ad

Responsive Ads Here