মানুষ যেতে পারে না পৃথিবীর এমন ৮ স্থান! - Rajbari News | রাজবাড়ী নিউজ | ২৪ ঘন্টাই সংবাদ

Breaking

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Wednesday, January 3, 2018

মানুষ যেতে পারে না পৃথিবীর এমন ৮ স্থান!

সকল বাঁধাকে উপেক্ষা করে মানুষ এখন বার বার মহাকাশে গেলেও পৃথিবীর বুকে কয়েকটি জায়গায় মানুষের প্রবেশ নিষেধ রয়েছে। সেই যায়গা গুলোতে হয় রয়েছে প্রাণহানির আশঙ্কা, না হয় রয়েছে সামাজিক বাঁধা।চলুন এক নজরে দেখে নেয়া যাক সেই স্থানগুলো-

নর্থ সেন্টিনেল দ্বীপ :
এমন স্থান গুলোর তালিকায় সবার প্রথমেই নাম আসবে আন্দামানের। আন্দামানের নর্থ সেন্টিনেল দ্বীপে মানুষ থাকে ঠিকই! তবে, সেই উপজাতি অন্য কোনও মানুষের সংসর্গ একেবারেই পছন্দ করে না।

১৯৭৫ সালে ন্যাশনাল জিওগ্রাফির এক পরিচালক একটা তথ্যচিত্র বানানোর উদ্দেশ্যে পৌঁছিয়েছিলেন ওই দ্বীপে। এসময় উপজাতিরা তার পায়ে বিষাক্ত তীর মারে। তার পর থেকেই আর কেউ ঝুঁকি নিয়ে সেখানে যাচ্ছেনা।

মেট্রো :
বিশাল এক লম্বা মেট্রো টানেল রয়েছে রাশিয়ায়। প্রায় ৩০,০০০ মানুষ এর মধ্যে ঠাঁই হতে পারে। সব চেয়ে বড় কথা, ক্রেমলিন থেকে এফএসবি-র হেডকোয়ার্টার পর্যন্ত সরাসরি সংযোগ রক্ষা করে এই সুড়ঙ্গ পথ। সেই জন্যই গুপ্ত হামলার ভয়ে এই সুড়ঙ্গে ট্রেন চালানো হয় না।

স্নেক আইল্যান্ড :
নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে, এই দ্বীপ সাপেদের জন্য, মানুষের জন্য নয়। নিশ্চিত থাকতে পারেন, এখানে গেলে কয়েক পা এগোলেই একটা করে বিষাক্ত সাপ চোখে পড়বে। তাই ব্রাজিল আর্মি এখানে সাধারণ মানুষকে যেতে দেয় না!

লাসক গুহা :
ফ্রান্সের দক্ষিণের এই গুহা আদিম মানুষের আঁকা গুহাচিত্রের জন্য বিখ্যাত। বিস্তৃত গুহার ছাদ, দেওয়াল জুড়ে শুধু রং আর রেখার কারিগরি। মুশকিল হল, গুহার ভিতর মানুষ ঢুকলে নিঃশ্বাসে কার্বনের প্রভাবে ছবিগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তাই নিতান্ত প্রয়োজন না থাকলে প্রত্নতাত্ত্বিক ছাড়া অন্যদের গুহায় ঢুকতে দেওয়া হয় না।

আইস গ্র্যান্ড শ্রাইন :
সূর্যদেবের এই মন্দিরের অবস্থান জাপানে। সেখানে আশ্রম বানিয়ে থেকে তাঁর পুজো করেন সন্ন্যাসী আর সন্ন্যাসিনীরা। কিন্তু, তাঁদের আশ্রমে যেতে পারেন না সাধারণ মানুষ। কারণ একটাই- সূর্যদেবের এই মন্দিরের সব সন্ন্যাসী-সন্ন্যাসিনীরাই রাজবংশের মানুষ। ফলে, তাঁদের অভিজাত ধর্মাচরণে যাতে কোনও ব্যাঘাত না ঘটে, সেই জন্যই এমন বন্দোবস্ত।

পূর্ব রেনেল, সলোমন দ্বীপ :
ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের আওতায় থাকা এই দ্বীপের ভয় অন্যত্র! শোনা যায়, এই দ্বীপে না কি বাস করে দৈত্যরা! নরমাংস ভক্ষণের জন্য তাদের প্রসিদ্ধিও ভালই! ফলে, ওখানে গিয়ে প্রাণের ঝুঁকি নিতে চায় না কেউই!

ইস্টার দ্বীপ, চিলি :
এই দ্বীপে কোন ঝুঁকি নেই। কিন্তু, দূরত্ব এতটাই যে পর্যটকরা খুব একটা গিয়ে ওঠার আগ্রহ বোধ করেন না!

পোভেজিলা, ইতালি :
ভেনিস আর ইতালির মাঝের এই দ্বীপ ব্যবহার করা হত মানুষকে নির্বাসন দণ্ড দেওয়ার জন্য। একবার, ১৩৪৮ সালে ভয়াবহ এক মহামারীর মুখে পড়ে ভেনিস। তখন সমস্ত অসুস্থ মানুষকে এক জোটে নিয়ে গিয়ে রাখা হয় ওখানে। এবং, মৃত ভেবে অনেক অসুস্থ মানুষকেও পুড়িয়ে দেওয়া হয়। তার পর থেকেই ওই দ্বীপ পড়ে আছে সম্পূর্ণ পরিত্যক্ত অবস্থায়।

Post Top Ad

Responsive Ads Here